আগামী রোববার হেফাজত ইসলামের কাউন্সিল

0

হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে ঘিরে ইতোমধ্যে হেফাজত নেতাদের মধ্যে তোড়জোড় শুরু হয়েছে। হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী গত ১৮ই সেপ্টেম্বর ঢাকা আজগর আলী হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তারপর থেকে হেফাজতের আমীরের পদটি শূণ্য রয়েছে। মূলত এরপর থেকেই হেফাজত প্রতিষ্ঠার ৮ বছরের মাথায় এসে কাউন্সিলের আলোচনা শুরু হয়।
জানা গেছে, আগামী রোববার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সম্মেলন (কাউন্সিল)। সংগঠনের সদর দপ্তর হিসেবে পরিচিত হাটহাজারী মাদ্রাসায় এ অনুষ্ঠিত কাউন্সিল হবে। সম্মেলন (কাউন্সিল) উপলক্ষে সারাদেশ থেকে কওমি অঙ্গের শীর্ষ আলেমরা কাউন্সিলে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। হেফাজতের প্রায় সাড়ে ৩’শ জন কেন্দ্রীয় শীর্ষ মুরুব্বিরাই ঠিক করবেন কে হবেন প্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর স্থলভিষিক্ত? জানা যায়, ২০১০ সালের ১৯ জানুয়ারী গঠিত হয়েছিল চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক কওমি আক্বীদাপন্থি অরাজনৈতিক ইসলামী সংগঠন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ। যদিওবা পরে অরাজনৈতিক এ সংগঠনটি রাজনৈতিক ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায়।

আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে আমীর ও মাদ্রাসার তৎকালীন সিনিয়র মুহাদ্দিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে মহাসচিব করে হেফাজতের ২২৯ সদস্যের মজলিশে শুরা কমিটি গঠন করা হয়েছিল। দেশ বরেণ্য শীর্ষ আলেম আহমদ শফী চলতি বছরের গত ১৮ই সেপ্টেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করার পর হেফাজতের আমিরের পদটি শূণ্য রয়েছে। ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষানীতির বিরোধিতার মধ্য দিয়ে হেফাজতের আত্মপ্রকাশ হলেও সংগঠনটি দেশজুড়ে আলোচনায় আসে ২০১৩ সালে ১৩ দফা দাবিতে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। বিশ্বজুড়ে আলোচনায় আসে ২০১৪ সালে ৫ মে শাপলা চত্বর অবরোধের মাধ্যমে।
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ন মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী  বলেন, আগামী ১৫ই নভেম্বর হেফাজতের সম্মেলন এর বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই। এটা একটা গ্রুপের সম্মেলন, এটা হেফাজতের কোন সম্মেলন নয়। আমি কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব হই। এ সম্মেলনের ব্যাপারে আমার সাথে কেউ কোন ধরনের আলাপ করেনি। আল্লামা আহমদ শফীর হাতে গড়া সংগঠনকে কোন ব্যক্তি কেন্দ্রিক সংগঠনে পরিণত করলে এর সঠিক জবাব দেয়া হবে।
হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য মাওলানা নাছির উদ্দিন মুনির মানবজমিন কে বলেন, ১৫ তারিখ হেফাজতের সম্মেলনকে ঘিরে ইতিমধ্যে আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ পযার্য়ে। মজলিসে শুরায়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে মতামতের ভিত্তিতে হেফাজত ইসলামের আমীর নির্বাচিত করা হবে। এ সম্মেলনে সারাদেশের ৬৪টি জেলা থেকে হেফাজতের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত থাকবেন। কেন্দ্রীয় শীর্ষ মুরুব্বিরা যাকে আমীর নির্বাচিত করবেন আমরা তাকে মেনে নিব।

হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে ঘিরে ইতোমধ্যে হেফাজত নেতাদের মধ্যে তোড়জোড় শুরু হয়েছে। হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা আমীর ও আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী গত ১৮ই সেপ্টেম্বর ঢাকা আজগর আলী হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তারপর থেকে হেফাজতের আমীরের পদটি শূণ্য রয়েছে। মূলত এরপর থেকেই হেফাজত প্রতিষ্ঠার ৮ বছরের মাথায় এসে কাউন্সিলের আলোচনা শুরু হয়।
জানা গেছে, আগামী রোববার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সম্মেলন (কাউন্সিল)। সংগঠনের সদর দপ্তর হিসেবে পরিচিত হাটহাজারী মাদ্রাসায় এ অনুষ্ঠিত কাউন্সিল হবে।
সম্মেলন (কাউন্সিল) উপলক্ষে সারাদেশ থেকে কওমি অঙ্গের শীর্ষ আলেমরা কাউন্সিলে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। হেফাজতের প্রায় সাড়ে ৩’শ জন কেন্দ্রীয় শীর্ষ মুরুব্বিরাই ঠিক করবেন কে হবেন প্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর স্থলভিষিক্ত?
জানা যায়, ২০১০ সালের ১৯ জানুয়ারী গঠিত হয়েছিল চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক কওমি আক্বীদাপন্থি অরাজনৈতিক ইসলামী সংগঠন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ। যদিওবা পরে অরাজনৈতিক এ সংগঠনটি রাজনৈতিক ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়ায়।

আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সাবেক মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে আমীর ও মাদ্রাসার তৎকালীন সিনিয়র মুহাদ্দিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে মহাসচিব করে হেফাজতের ২২৯ সদস্যের মজলিশে শুরা কমিটি গঠন করা হয়েছিল। দেশ বরেণ্য শীর্ষ আলেম আহমদ শফী চলতি বছরের গত ১৮ই সেপ্টেম্বর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করার পর হেফাজতের আমিরের পদটি শূণ্য রয়েছে। ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষানীতির বিরোধিতার মধ্য দিয়ে হেফাজতের আত্মপ্রকাশ হলেও সংগঠনটি দেশজুড়ে আলোচনায় আসে ২০১৩ সালে ১৩ দফা দাবিতে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। বিশ্বজুড়ে আলোচনায় আসে ২০১৪ সালে ৫ মে শাপলা চত্বর অবরোধের মাধ্যমে।
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ন মহাসচিব মাওলানা মঈনুদ্দিন রুহী মানবজমিন কে বলেন, আগামী ১৫ই নভেম্বর হেফাজতের সম্মেলন এর বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই। এটা একটা গ্রুপের সম্মেলন, এটা হেফাজতের কোন সম্মেলন নয়। আমি কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব হই। এ সম্মেলনের ব্যাপারে আমার সাথে কেউ কোন ধরনের আলাপ করেনি। আল্লামা আহমদ শফীর হাতে গড়া সংগঠনকে কোন ব্যক্তি কেন্দ্রিক সংগঠনে পরিণত করলে এর সঠিক জবাব দেয়া হবে।
হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য মাওলানা নাছির উদ্দিন মুনির মানবজমিন কে বলেন, ১৫ তারিখ হেফাজতের সম্মেলনকে ঘিরে ইতিমধ্যে আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ পযার্য়ে। মজলিসে শুরায়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে মতামতের ভিত্তিতে হেফাজত ইসলামের আমীর নির্বাচিত করা হবে। এ সম্মেলনে সারাদেশের ৬৪টি জেলা থেকে হেফাজতের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত থাকবেন। কেন্দ্রীয় শীর্ষ মুরুব্বিরা যাকে আমীর নির্বাচিত করবেন আমরা তাকে মেনে নিব।

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.