এনজিও

0
Want create site? Find Free WordPress Themes and plugins.
মো.মুজিব উল্ল্যাহ তুষার ( সাংবদিক,সংগঠক ও মানবাধিকার কর্মী): এনজিও মানে Non- Government Organization, বাংলায় ‘নয় সরকারি সংস্থা’ অর্থাৎ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা। এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর দলিলে লেখা হয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এনজিও হচ্ছে কোনো ব্যক্তি বা গ্রুপ কর্তৃক তৈরি করা একটি বৈধ সংগঠন যা সরকারের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত না হয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করে। অলাভজনক সংগঠন যারা দেশ, সমাজ ও মানুষের উন্নয়নের জন্য নানামুখী কাজ করে থাকে। এদের উদ্দেশ্য হচ্ছে বিভিন্ন বিদেশি দাতাদের অর্থায়নের ভিত্তিতে সরকারকে উন্নয়নে সহযোগীতা করা ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সক্রিয় অবদান রাখা। অসহায়ত্ব ও অক্ষমতাকে পুজিঁ করে উন্নয়নের নামেই এনজিওর ব্যপকতা ও তৎপরতা। আকার, প্রকার, উদ্দেশ্য, অঞ্চল, প্রকৃতিভেদে বাংলাদেশে এখন অনেক এনজিও কাজ করছে। বাংলাদেশে এনজিওগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ব্রাক, আশা, প্রশিকা, অক্সফাম, গ্রামীণ ব্যাংক, সেইভ দ্য চিলড্রেন, মুসলিম এইড, একশন এইড,এডুকেশন ওয়াচ ইত্যাদি। অনেক এনজিও ব্যবসা বাণিজ্যও করছে তবে তাদের রয়েছে ইনকাম জেনারেটিং প্রজেক্টের আইনগত বৈধতা। বাংলাদেশের এনজিওগুলো সামাজিক উন্নয়নে নানাবিধ কার্যক্রম পরিচালনা করছে সেগুলো হলো,১.ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ ২.নারী ও শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠা ও জীবনমান উন্নয়ন ৩.শিক্ষা কার্যক্রম ৪.স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম ৫.মানবাধিকার ও আইনি কার্যক্রম ৬.আদিবাসী উন্নয়ন ৭.পরিবেশ ৮.উন্নয়ন গবেষণা ৯. বাজার গবেষণা ১০. ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা উন্নয়ন ১১.গ্রামীণ উন্নয়ন ১২. মানব সম্পদ উন্নয়ন ১৩.জেন্ডার ১৪. পরিবেশ ১৫.মিডিয়া ১৬.কৃষি ১৭. কর্মসংস্থান ইত্যাদি।
এনজিও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত অমুনাফাভিত্তিক এক ধরনের বিশেষ স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন। সার্বিক উন্নয়নের জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সাহায্য হতেই যার সূচনা। একবিংশ শতাব্দীর সূচনালগ্নে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার প্রবৃদ্ধি ও কার্যকরণের সম্প্রসারণ ঘটে। এনজিও শুধু জাতীয়ভাবেই নয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়েও রয়েছে। দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং পল্লী উন্নয়নে কাজ করছে এসব এনজিও। বর্তমানে এনজিওগুলোর মূল কাজ হচ্ছে মানুষের মধ্যে যে আত্মবিকাশের ক্ষমতা আছে সেটা কাজে লাগানো। মানুষ যেন নিজেই নিজের অবস্থা পরিবর্তন করতে পারে তার ব্যবস্থা করে দেওয়া। এই প্রক্রিয়া থেকে সুবিধাবঞ্চিত হতদরিদ্র জনগোষ্ঠী যখন লাভবান হন তখন তাদের মধ্যে একটি বিশেষ আত্মতৃপ্তি কাজ করে, তাদের সামাজিক মর্যাদা বাড়ে- যা তাদের আরো সামনে এগিয়ে যেতে উদ্বুদ্ধ করে। এনজিওগুলো দেখে যে একটি নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠী/ লোকালয়ের মানুষদের কোন্ কোন্ ক্ষেত্রে উন্নয়ন প্রয়োজন, সেই অনুযায়ী তারা কাজ করে থাকে। বাংলাদেশের সব জায়গাতেই এরা কাজ করে থাকে। এদের মধ্যে কিছু কিছু শহরকেন্দ্রীক, কিছু আছে গ্রাম কেন্দ্রীক, আবার কিছু এনজিও আছে যারা শহর ও গ্রাম উভয় এলাকাতেই কর্মপরিচালনা করে। এনজিওগুলোর কাজ বিশেষ ভৌগোলিক এলাকা ভিত্তিক-ও হয়ে থাকে, যেমন চর/উপকূলীয়/পার্বত্য এলাকা কেন্দ্রীক এনজিও। এছাড়া তারা বিশেষ জনগোষ্ঠীকে নিয়েও কাজ করে, যেমন- প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী, শ্রমজীবি শিশু, কিংবা নির্যাতিতা নারী। এনজিওর কাজ বহুমুখী, সেখানে কাজের ক্ষেত্রও ব্যাপক। মাঠ পর্যায়ে ছোট-বড় বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর সাথে মেশা, তাদের সমস্যার কথা সরকার ও সমাজের প্রতিষ্ঠিত মহলকে জানানো, তাদের উন্নয়নে বিভিন্ন প্রজেক্ট হাতে নেওয়া, এর জন্য দাতাগোষ্ঠীর কাছ থেকে অনুদান সংগ্রহ করা, সামগ্রিকভাবে বিভিন্ন প্রজেক্ট পরিচালনা করা- নানা স্তরে এনজিওতে অসংখ্য গুরুত্বপূর্ণ কাজ রয়েছে।
এনজিওতে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে হয় স্বতঃস্ফূর্তভাবে। তাই এনজিওতে কাজে দরকার সমাজের সুবিধা বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর ইচ্ছা। দেশের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণের সুযোগে বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ এবং সংস্কৃতি সম্পর্কে জানা সম্ভব একেবারে কাছ থেকে। উন্নয়নমূলক কাজে সরাসরি নিজেকে নিয়োজিত করতে পারাটা আনন্দের। তবে এনজিওদের ব্যপারে সমালোচনাও আছে। বাংলাদেশে অধিকাংশ এনজিও-র তহবিল, মূলধন বা বিনিয়োগ আসছে খ্রীস্টান সংগঠন সমূহের পক্ষ থেকে। দরিদ্র ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে ৪০% ভাগের উপর মুনাফা বা সুদ নেয়ার পরও সরকারকে কর দেয় না, সম্পূর্ণ করমুক্ত সুবিধা পায়। এনজিও ব্যুরোর নিয়মানুযায়ী প্রতিটি প্রকল্পের ১৫ভাগ টাকা প্রশাসনিক ব্যয়ের জন্য রেখে বাকি ৮৫ভাগ টাকা কর্মসূচির কাজে ব্যয় করতে হবে। অথচ এমনও দেখা যায়, প্রকল্পের বরাদ্দের শতকরা ৮০ভাগ যায় পরিবহন ও বিদেশী কর্মকর্তা উপদেষ্টাদের পেছনে। ১৫ভাগ ব্যয় হয় স্থানীয় কর্মচারীদের পেছনে এবং টার্গেট গ্রুপের জন্য ব্যয় হয় শতকরা মাত্র ৫ভাগ।
Did you find apk for android? You can find new Free Android Games and apps.

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.