শিশু ইমন হত্যা: চার আসামির ফাঁসির রায়

0
Want create site? Find Free WordPress Themes and plugins.

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার চাঞ্চল্যকর স্কুলছাত্র শিশু মোস্তাফিজুর রহমান ইমন হত্যা মামলায় চার জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত।
আজ বুধবার ওই মামলার রায় দেন সিলেটের দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. রেজাউল করিম।
হত্যা, অপহরণ ও লাশ গুমের অভিযোগে পৃথক ধারায় তাদের দোষী সাব্যস্ত করেন আদালত।
রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন নিহতের পিতা ও মামলার বাদি জহুর আলীসহ আইনজীবীরা।
রায় ঘোষণার সময় চার আসামির মধ্যে তিনজনই আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
ফাঁসির আদেশ প্রাপ্ত আসামিরা হলেন-ছাতকের ছৈলা-আফজলাবাদ ইউনিয়নের জামায়াতের সেক্রেটারি ও ব্রাহ্মণজুলিয়া গ্রামের মৃত মখলিছ মিয়ার ছেলে, বাতির কান্দি মসজিদের ইমাম শুয়াইবুর রহমান সুজন, বাতির কান্দি গ্রামের আব্দুল মুক্তাদিরের ছেলে রফিকুল ইসলাম রফিক ও নোয়ারাই ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি বাতিরকান্দি গ্রামের আব্দুস ছালামের ছেলে জাহেদুর রহমান ও একই গ্রামের আব্দুল কবিরের ছেলে সালেহ আহমদ। এর মধ্যে সালেহ আহমদ ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছেন।
রায়ে হত্যাকাণ্ড, অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগে আসামিদের মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া লাশ গুমের অভিযোগে ২০১/৩৪ ধারায় প্রত্যেক আসাসিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেন আদালত।
২০১৫ সালে ২৭ মার্চ ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের বাতিরকান্দি গ্রামের সৌদি প্রবাসী জহুর আলীর ছেলে ও লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট কারখানার কমিউনিটি বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির ছাত্র মোস্তাফিজুর রহমান ইমনকে অপহরণ করা হয়। মুক্তিপনের ২ লাখ টাকার মধ্যে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা পাওয়ার পরও অপহরণকারীরা শিশু ইমনকে হত্যা করে। একই বছর ৫ এপ্রিল রাতে ইমনের বাড়ি সংলগ্ন মসজিদের আঙ্গিনায় তাকে বিষ পান করিয়ে গলাকেটে হত্যা করে।

Did you find apk for android? You can find new Free Android Games and apps.

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.