ইশা ছাত্র আন্দোলনের ফটিকছড়ি উপজেলা কাউন্সিল সম্পন্ন

0

সরওয়ার কামাল জামানঃ  ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ-এর ফটিকছড়ি উপজেলার ২০২১-২২ সালের উপজেলা কাউন্সিল গতকাল ১৮ ফেব্রুয়ারি রোজ বৃহস্পতিবার বিবিরহাট সানমুন কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত  হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সভাপতি জনাব মাওলানা আনসারুল্লাহ সাহেব। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফটিকছড়ি  সরকারি কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক জনাব শামীম জাহাঙ্গীর চৌধুরী। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সহ-সভাপতি জনাব তানভীর মাহতাব।   

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাওলানা আনসারুল্লাহ সাহেব বলেছেন, আমাদের সংবিধান হলো কুরআনুল কারীম। যেখানে কোন ধরণের ভুল হতে পারে না। তিনি বলতে চেয়েছেন, সুদনীতি এবং ট্যাক্সনীতি বিশ্ববাসীকে শান্তির বার্তা শোনাতে পারেননি। তাই গবেষকরা ইসলামি যাকাতনীতি বাস্তবায়নের দিকে ঝুঁকে পড়েছে।

বিশেষ অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, এই রাজনীতি শুধু আলেম-উলামাদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকবে কেন? এটা সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া নিতান্ত জরুরী বলে আমি মনে করি।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে তানভী৷ মাহতাব বলেছেন, ন্যায়নীতির সংগঠন হিসেবে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন যখন তাদের সকল রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালিত করে আসছে, তখন সরকারপক্ষ তাদের এই আন্দোলনে হামলা চালাচ্ছে। আপনারা দেখেছেন, হিজাবদিবস উপলক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সভাপতিকে কর্মসূচী পালনের সময় তার উপর  হামলা করে আক্রান্ত করা হয়েছে। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের উপর অন্যায়ভাবে হামলা করা হয়েছে। ছাত্রদের উপর যারা আক্রমণ করেছে তাদের চিহ্নিত করে সরকারকে অতি দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসার জোর দাবী জানাচ্ছি। সবশেষে নবগঠিত কমিটির সদস্যদের নাম ঘোষণাপূর্বক সবাইকে শপথবাক্য পাঠ করান।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক উপজেলা কাউন্সিলের সর্বসম্মতিক্রমে ফটিকছড়ি উপজেলার সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন জনাব একরামুল হক ছিদ্দিকী। সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সুলতান মাহমুদ ইরফানুল্লাহ এবং সাধারণ সম্পাদক হাফেজ হাবিবুর রহমান।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রথমে সভাপতি, সহ সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করা হয়। পরবর্তীতে এদের ৩ জনের মতামত এবং যাচাই-বাছাই ও সিদ্ধান্তের মাধ্যমে যেকোনো সময় তারা পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করার মত ক্ষমতা রাখেন। তাদের ঘোষিত কমিটিকে কেন্দ্রীয় কমিটি অনুমোদন দেন।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন সবসময় যোগ্যতাবান, মেধাবী, সংগঠনর জন্যে নিবেদিতপ্রাণ, সৎ, কর্মট, ধর্মপরায়ণ, নীতিবান এবং কাজের

উপযুক্তদের সবসময় অগ্রাধিকার দেন। এই সংগঠনটি গঠিত হয়েছে বাংলাদেশের গণমানুষের কাছে ধর্ম এবং দাওয়াতকে ছড়িয়ে দিতে। গণমানুষের অধিকার ফিরিয়ে দিতে এবং সমাজ, রাষ্ট্র এবং সাধারণ জনগণকে অত্যাচার, জুলুম- নির্যাতন এবং সবধরণের কষ্টের কারাগার থেকে মুক্তি দিতে। এই লৌহশপথে ইসলামি শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ আপোষহীনভাবে এগিয়ে যাচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও ইস্পাতকঠিন রূপে দাঁড়িয়ে থাকবে।

কাউন্সিল উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সহ সভাপতি মাওলানা আতিকুল্লাহ বাবুনগরী,  নাজিরহাট শহিদুল আজম হোমিওপ্যাথিক  মেডিকেল কলেজের  উপাধ্যক্ষ

ডা. এইস এম জিয়াউল হক,  ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সাবেক জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওলানা মামুনুল হক সিদ্দিকী, ফটিকছড়ি উপজেলা  ইসলামী আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা খালেদ সুলতানি, ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম উত্তর জেলার সাবেক সভাপতি মাওলানা ইমদাদুল্লাহ চৌধুরী, ইসলামী শাসনতন্ত্র  ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সভাপতি হাবিবুল্লাহ মিসবাহ, ইসলামী আন্দোলন ফটিকছড়ি থানা দক্ষিণ এর সেক্রেটারি মাওলানা কবি আলী আকবর এবং ছাত্র ও যুব বিষয়ক সম্পাদক মোঃ রাসেল হোসেন প্রমুখ।

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.