টেস্ট খেলতেই পাকিস্তানে যাচ্ছে বাংলাদেশ

1

পাকিস্তান দেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজ খেলতে অনড়। কোনোভাবেই পিসিবি কর্মকর্তাদের টি২০ সিরিজের জন্য রাজি করাতে পারেনি বিসিবি। বরং বিভিন্ন সময়ে বিসিবি কর্মকর্তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছেন পিসিবির কর্মকর্তারা। সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের বৈঠকেও বিসিবি সভাপতিকে শুধু টেস্ট খেলার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এ বাস্তবতা জানাতেই বুধবার কোর পরিচালক ও কয়েকজন ক্রিকেটারকে নিয়ে জরুরি সভায় বসেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়, শুধু টেস্ট খেলতেই পাকিস্তানে যাবে বাংলাদেশ। এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে বৃহস্পতিবার সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে সবুজ সংকেত পাওয়া গেলে।

জরুরি সভায় ছিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। মুশফিকুর রহিম ছাড়া বাকিরা পাকিস্তানে টেস্ট খেলতে রাজি হলেও সফর সংক্ষিপ্ত করার অনুরোধ জানিয়েছেন।
পাপন বলেন, ‘মুশফিক প্রথম থেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেনি। অন্য যাদের সঙ্গে কথা হয়েছে, তারা অল্প সময়ের জন্য যেতে আগ্রহী।’

একজন পরিচালক জানান, বিকল্প কিছু প্রস্তাব এসেছে সভায়। একটি করে টেস্ট ম্যাচ খেলার ব্যাপারে পাকিস্তানকে রাজি করাতে অনুরোধ করতে বলা হয়েছে। সিরিজের প্রথম টেস্ট খেলবে জানুয়ারিতে, দু’মাস পর খেলতে যাবে দ্বিতীয় টেস্ট। এ প্রস্তাবে রাজি নাও হতে পারে পিসিবি। তারা একই সঙ্গে দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে চায় দেশের মাটিতে। এ ছাড়া সিরিজটি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ। এজন্য আইসিসির বাধ্যবাধকতার অজুহাত দেখাচ্ছে তারা। সম্প্রতি শ্রীলংকা দল পাকিস্তানে দুই টেস্টের সিরিজ খেলেছে। শ্রীলংকান দলের সফরকে ঢাল হিসেবে কাজে লাগাচ্ছেন তারা।

পাপন বলেন, ‘আমরা তাদের জানিয়েছিলাম, টি২০ খেলে চলে আসতে চাই। পরে কোনো এক সময় টেস্ট খেলব; কিন্তু তাদের টেস্টের দিকেই আগ্রহ বেশি। যেহেতু টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ চলছে, তারা বলছে টেস্টটা গুরুত্বপূর্ণ, টি২০ পরে খেললে অসুবিধা নেই।’

এই সিরিজ দিয়ে পিসিবি বিশ্বের অন্যান্য টেস্ট খেলুড়ে দেশকে দেখাতে চায়, পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য নিরাপদ। টেস্ট না খেললে নিজেদের ক্ষতির দিকটিও ভাবতে হচ্ছে বিসিবিকে।

আজ এগুলো ক্ষতিয়ে দেখা হবে বলেন পাপন, ‘যা করার কালকের (আজ) মধ্যেই করতে হবে। আমাদের দেখতে হবে, গেলে কী হবে, না গেলে কী হবে। বরং না গেলে কী হবে সেটা নিয়েই আমাদের চিন্তা। সবার সঙ্গে আলাপ করেছি কী হতে পারে। টেস্ট নিয়েই চিন্তা। যেহেতু এটা টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, এটা না হলে কী হবে?’ সে যাই হোক, অনেকটা বাধ্য হয়েই দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে পাকিস্তানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বিসিবি।
বিসিবির এক পরিচালক জানান, আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে পাকিস্তান সফরের বিষয়ে অবহিত করবেন। সরকারের সবুজ সংকেত পেলে দল পাঠাবে বিসিবি।