Wednesday, September 30

পাঁচ কার্যদিবসে ছয়টি বিল পাস, শেষ হলো একাদশ সংসদের নবম অধিবেশন

0

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস ও সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে একাদশ সংসদের নবম অধিবেশন শেষ হল পাঁচ কার্যদিবসে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের আদেশ পড়ে শোনানোর মধ্যে দিয়ে এ অধিবেশনের সমাপ্তি টানের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

সংক্রমণ এড়াতে এবারও অধিবেশনে নেওয়া হয় বেশ কিছু ব্যবস্থা। মহামারীকালে হওয়া আগের দুটি অধিবেশনের মতই সংসদ সদস্যরা মাস্ক ও গ্লাভস পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অধিবেশনে অংশ নেন। অধিবেশন কক্ষে কর্মরত কর্মচারীরাও মাস্ক, গ্লাভস ও মাথা ঢেকে দায়িত্ব পালন করেন।

এ অধিবেশনে বিল পাস হয়েছে মোট ছয়টি। এগুলো হল- হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বিল-২০২০; বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয় বিল-২০২০; চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বিল ২০২০, বাংলাদেশ রেফারেন্স ইনস্টিটিউট ফর কেমিক্যাল মেজারমেন্টস বিল-২০২০, বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল বিল-২০২০ এবং গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল-২০২০।

৭১ বিধিতে পাওয়া ৩৮টি নোটিসের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উত্তর দেওয়ার জন্য ছিল ২৭টি। তার মধ্যে সাতটি প্রশ্নের উত্তর দেন তিনি।অন্য মন্ত্রীদের জন্য এ অধিবেশনে মোট ৬৬১টি প্রশ্ন আসে, যার মধ্যে ১৮২টির উত্তর দিয়েছেন তারা।

গত মার্চ মাসে দেশে করোনা ভাইরাসের বিস্তার শুরু হওয়ার পর এটি তৃতীয় অধিবেশন। গত বাজেট অধিবেশনের মত এবারও অধিবেশনে যোগ দিতে করোনাভাইরাস পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া হয় সংসদ সদস্যদের।গত এপ্রিল ও জুনে সংসদের সপ্তম ও অষ্টম (বাজেট) অধিবেশন বসে। সে সময়ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে অধিবেশন পরিচালনা করা হয়। সংসদ অধিবেশন চলাকালে দায়িত্বরত সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে করোনাভাইরাস পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া হয়।

সপ্তম অধিবেশনে সংসদ সদস্যদের কোভিড-১৯ টেস্ট করানোর প্রসঙ্গ আসেনি। তবে এরপর বেশ কয়েকজন মন্ত্রী-এমপি আক্রান্ত হওয়ার পর অষ্টম অধিবেশনের মাঝপথে সংসদ সদস্যদেরও পরীক্ষা করাতে অনুরোধ করা হয়। এবার ৬ সেপ্টেম্বর অধিবেশন শুরুর আগেই তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করতে বলা হয়।

তালিকা করে প্রতিদিন ৮০ জনের মত সংসদ সদস্য অধিবেশনে অংশ নেন। অধিবেশন চলাকালে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের সবার কোভিড-১৯ পরীক্ষায় নেগেটিভ সনদ থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়।সংসদের বিগত অষ্টম অধিবেশন গত ৯ জুলাই শেষ হয়। সংবিধানের বিধান মতে সংসদের দুটি অধিবেশনের মধ্যে ৬০ দিনের বেশি বিরতি থাকার সুযোগ নেই। যে কারণে এ অধিবেশন ডাকতে হয়।

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.