“মুমতাজ” প্রাপ্তদের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠান

0

১২/৯/১৯ রোজ বৃহস্পতিবার জামেয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী’র মিলনায়তনে, বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া(বেফাক) চট্টগ্রাম জেলা শাখার উদ্যোগে সদ্য সমাপ্ত বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া ও আল-হাইআতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া’র কেন্দ্রীয় ১৪৪০ হি./২০১৯ খ্রি. পরীক্ষায় ” মোমতাজ ” স্তরে উত্তীর্ন শিক্ষার্থীদের ‘পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান’ আয়োজন করা হয় । এতে সভাপতিত্ব করেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, বেফাক ও হাইআতুল উলইয়া’র চেয়ারম্যান আল্লামা শাহ আহমদ শফী দা.বা.। বিশেষ অতিথি ছিলেন বেফাক মহাসচিব আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস দা.বা., আল্লামা জুবাইর আহমদ চৌধুরী, ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নিজামুদ্দীন নদভি (এম.পি)।

শিক্ষার্থীদের মাঝে মেধা তালিকায় প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মেধাবী ছাত্র আহমদ সালেম নকি ও মাহমুদ সালমান জকিসহ সর্বোচ্চ মেধা তালিকায় ১০ জন এবং ৮২ জন ‘মুমতাজ’ স্তরে উত্তী্র্ণ হয়।অনুষ্ঠানে বিভিন্ন মাদরাসার সর্বমোট ৩৫৭ মুমতাজ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীকে তিন লক্ষাধিক টাকার কিতাব ও নগদ টাকা পুরস্কার প্রদান করা হয়।

সভাপতির বক্তব্যে আল্লামা শাহ আহমদ শফি উপস্থিত ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা যারা মুমতাজ স্তরে উত্তীর্ণ হয়েছেন, তাদেরকে আজ পুরস্কৃত করা হচ্ছে। আর যারা হননি তারাও চেষ্টা করেন আগামীতে মুমতাজ হওয়ার। তখন বোর্ডের পক্ষ হতে আপনাদেরকেও এভাবে পুরস্কৃত করা হবে।
এরপর তাদেরকে ভালো করে লেখা-পড়া করার ওয়াদা করান। এবং বলেন, আপনারা লেখা-পড়ার পাশাপাশি নিজেদের আমল সংশোধন করবেন। আমল ছাড়া ইলমের কোনো দাম নেই।

অনুষ্ঠানে হেফাজত মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ফারেগীন আলেমদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা সীরাতে মুস্তাকীমের উপর অটল থাকবেন এবং ইস্তিকামাতের সাথে কাজ করবেন। কারণ, আপনারা কওমের রাহবর। আপনার বিপথগামী হলে, পুরো কওম বিপথগামী হবে, পতন নেমে সর্বস্তরে।

বেফাক মহাসচিব আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস দা.বা. আখলাক ও নৈতিকতার বিষয়ে সতর্ক করে বলেন, মানুষের হক নষ্ট করবেন না। মানুষের হকের জন্য তার কাছেই ক্ষমা চাইতে হবে। ছোট বড় যেকোনো গোনাহ থেকে বেচে থাকবেন। কেননা, সবকিছুর হিসাব দিতে হবে। শিক্ষাকে অন্যায় কাজে ব্যবহার করবেন না। বান্দাদের মধ্যে আলেমরাই আল্লাহ তাআলাকে বেশি ভয় করে।

আবু রেজা মুহাম্মদ নদভী (এমপি) অনুষ্ঠানের আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা রেখে শায়খুল ইসলাম আহমদ শফি সাহেবের প্রতি নিজের ভালোবাসা ও শুকরিয়া ব্যক্ত করেন। তিনি কওমি মাদরাসার ছাত্রদের প্রশংসা করে বলেন, তারাই বর্তমানে ইসলামের উত্তম ও সর্বোৎকৃষ্ট ধারকবাহক। এভাবে প্রতি বছর মেধাবীদের পুরস্কৃত করার প্রতি দায়িত্তশীলদের উৎসাহিত করেন এবং জামেয়ার উন্নতি-অগ্রগতি কামনা করে বক্তব্য রাখেন।
অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মাওলানা নূরুল ইসলাম জাদীদ ও ড. নূরুল আবছার সাহেব দা.বা. অনুষ্ঠানে বেফাকের দায়িত্বশীল ব্যক্তিবর্গসহ যারা উপস্থিত ছিলেন- আল্লামা জুবাইর আহমদ চৌধুরী, মাওলানা আবু ইউসুফ, মুফতি নূর আহমদ দা.বা. আল্লামা শেখ আহমদ দা.বা. মুফতি জসিম উদ্দীন দা.বা. মুফতি কিফায়াতুল্লাহ দা.বা. মাওলানা আনাস মাদানী দা.বা., মুফতি হুমায়ুন কবীর দা.বা. মাওলানা ফুরকান আহমদ, মাওলানা সলিমুল্লাহ দা.বা., মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক নূর দা.বা., মাওলানা আব্দুল হক দা.বা., মাওলানা মীর ইদরীস দা.বা., মাওলানা ছফিউল্লাহ দা.বা., মাওলানা মীর কাসেম দা.বা. প্রমূখ।

Leave A Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.